×
  • প্রকাশিত : ২০২২-১২-২০
  • ৮৭ বার পঠিত
  • নিজস্ব প্রতিবেদক

"হিন্দু ও মুসলমানের ধর্মীয় দর্শন আলাদা, তাদের সামাজিক আচার আচরণ, সাহিত্য ও সংস্কৃতি ভিন্ন। হিন্দু ও মুসলিমদের একই জাতীয় পরিচয়ে পরিচিত করা একটা স্বপ্নমাত্র‘’

মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর এই চিন্তা চেতনার ভিত্তিতেই ''দ্বি-জাতি তত্ত্বের"একটা ভ্রান্ত আদর্শে  ১৯৪৭ সালের দেশভাগ হয়। দেশভাগের মাত্র পাঁচ বছরের মাথায় জিন্নাহর কথাকে ভুল প্রমাণিত করে বাঙালিরা।  হিন্দু-মুসলিম যে একই জাতীয় পরিচয়ে পরিচিত হতে পারে তার  প্রথম প্রমাণ বাঙালিরা দেয় ৫২র ভাষা আন্দোলনেপরবর্তীতে প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনেই পূর্ব পাকিস্তানের জনগোষ্ঠী একক জাতীয় পরিচয় হিসেবে আন্দোলন করেছে, হিন্দু-মুসলিম নামক আলাদা ধর্মীয় বেড়াজালে কোন আন্দোলন তারা করেন নি। দ্বি-জাতি তত্ত্ব যে পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠীর একটা ভাঁওতাবাজি ছিলো তা খুব দ্রুতই সবার কাছে পরিষ্কার হয়ে উঠে। মুসলমানদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যে  রাষ্ট্রের  সৃষ্টি  তাঁর ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ এই দীর্ঘ ২৪ বছর পশ্চিম পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠির হাতে পূর্ব পাকিস্তানের মুসলমানরাই সবচাইতে বেশি নির্যাতিত হয়েছেন। সাতচল্লিশ পরবর্তী পূর্ব পাকিস্তানের ওপর পশ্চিমাংশের কর্তৃত্বের ইতিহাস সবারই জানা। একের পর এক বাঙালিদের সংগ্রাম, বিশেষত ১৯৬৬ সালের পর শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে পরিচালিত আন্দোলনের ফলে পাকিস্তান রাষ্ট্র ভেঙে যাওয়া ছিল শুধু সময়ের ব্যাপার। পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকশ্রেণীর হাতে একাত্তরের গণহত্যার মাধ্যমে বাঙালিদের প্রত্যক্ষ জাতিগত নিপীড়নের চূড়ান্ত রূপটি যখন মঞ্চস্থ হলো তারপর পুরোদমে শুরু হলো বাঙালির স্বাধীনতার আন্দোলন। এদিকে একাত্তরের বর্বর গণহত্যার পর বাংলাদেশের স্বাধীনতাসংগ্রামে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের ভূমিকা নির্ধারক হয়ে দেখা দেয়।

১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ৯৩ হাজার পাকিস্তানি সেনার আত্মসমর্পণের মধ্যে দিয়ে জন্ম হয়েছিল স্বাধীন রাষ্ট্র বাংলাদেশের। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় ভারতের সমর্থন বাঙালিরা পেলেও মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রত্যক্ষ অংশগ্রহণ শুরু হয়ে ২১ নভেম্বর। ভারতীয় বাহিনী ও মুক্তিবাহিনী একত্রে যৌথ বাহিনী গঠনের মাধ্যমে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে শুরু করে যুদ্ধ। একাত্তরের বিজয় দিবসের ঠিক আগের দু সপ্তাহ ধরে চলেছিল তীব্র যুদ্ধ - যার একদিকে ছিল পাকিস্তানি সেনা, আর অন্যদিকে ভারতীয় সেনা আর বাংলাদেশের মুক্তিবাহিনী। কিন্তু ভারতীয় সেনাবাহিনীর অংশগ্রহণ কেনো এতো দেরীতে? এ নিয়ে নানা সময় নানা প্রশ্ন অনেক মহল থেকে এসেছে।

২৫ মার্চের বর্বর গণহত্যা শুরু হবার পর স্বাধীনতার ঘোষণা দেয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীনতার ঘোষণা আসার পরেও বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারত সরাসরি অংশ নেয়াতে একদিকে ছিলো কূটনৈতিক বাধা অন্যদিকে ছিলো পূর্ব প্রস্তুতির অভাব। কেননা  ভারতীয় সেনা পূর্ব পাকিস্তানে যুদ্ধ করতে হবে ভেবে কোনদিনও আলাদা প্রস্তুতি নেয়নি। ইস্টার্ন সেক্টরে ভারতের প্রায় সব সেনাই প্রস্তুতি নিতেন চীনের বিরুদ্ধে লড়ার জন্য। তাই ভারতীয় সেনাদের নদীমাতৃক বাংলাদেশে লড়ার জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণ ছিল না। এক্ষেত্রে কোন রাখঢাক না করেই পরবর্তীতে বিবিসি-কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে যুদ্ধবিদ্যার বিশেষজ্ঞ ও ভারতের সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল দীপঙ্কর ব্যানার্জি বলছিলেন, " মার্চে পূর্ব পাকিস্তানে ক্র্যাকডাউন শুরু হওয়ার পর পরই কোনও সামরিক অভিযানের কথা ভাবাটা সম্ভব ছিল না। চীনকে মাথায় রেখেই ভারতীয় সেনাবাহিনী  মাউন্টেন ওয়ারফেয়ার, হাই অল্টিচিউড লড়াইয়েরই প্রশিক্ষণ নিতেন, অস্ত্রশস্ত্র বা স্ট্র্যাটেজিও সেভাবেই জোগানো হত। সেখানে বাংলাদেশে নদীনালায় ভরা একটা সমতলভূমি, সেই জলময় পরিবেশে যুদ্ধের জন্যও ভারতীয় সেনাবাহিনির আলাদা প্রস্তুতি নিতে হয়েছিল।" অপরদিকে ছিলো কূটনৈতিক বাধাও! কেননা তখন পর্যন্ত বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়নি। পররবর্তীতে ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর সরকার আনুষ্ঠানিভাবে শপথ গ্রহণ করলে দ্বিতীয় ধাপে উন্নীত হয় আমাদের মুক্তিযুদ্ধ। এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী বিশ্বব্যাপী সফরে বের হন এবং একাত্তরের গণহত্যা বিশ্ববাসীর কাছে তুলে ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতার যৌক্তিক অবস্থান তুলে ধরেন। কিন্তু এপ্রিলে সরকার গঠন হলেও ভারতের সেনাবাহিনী কেনো নভেম্বরের ২১ তারিখে আনুষ্ঠানিকাভাবে যুদ্ধে অংশ নিলো!

মুজিবনগর সরকার গঠিত হবার প্রায় সাত মাস পর নভেম্বর মাসে ভারতীয় সেনাবাহিনী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়, এর পেছনে ভিন্ন এক সামরিক কৌশল ছিল যা পরে জানা যায়। বাংলাদেশে জুন থেকে অক্টোবর হলো বর্ষাকাল। তখন গোটা বাংলাদেশ এক প্রকাণ্ড জলাভূমির চেহারা নেয়। আর তাই ভারত চেয়েছে মুক্তিবাহিনী দিয়েই পাকিস্তানকে অভ্যন্তরীণভাবে সেই সময়টা বিপর্যস্ত করে বর্ষার পর যৌথ আক্রমণ চালাতে। কেননা বর্ষার মাঝে যুদ্ধ করে টিকে থাকাটা ভারতের সেনাবাহিনীর জন্যও একদম অচেনা একটা পথ ছিলো। অপরদিকে মুক্তিবাহিনী নিজের পরিবেশ বা স্থান সম্পর্কে ভালো জানা থাকায় বর্ষায় তারা একের পর এক আক্রমণে পাকিস্তানকে পর্যদুস্ত করেছে, পুরো বর্ষা পাকিস্তান সেনাদের ঘিরে রাখতে পেরেছে। কারণ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর জন্যও এই বর্ষা মৌসুমে যুদ্ধ একদম নতুন অভিজ্ঞতা ছিলো।বর্ষা থামতেই চারদিক থেকে পাকিস্তান সেনাদের আক্রমণ করা হল, পাকিস্তান তেমন প্রতিরোধ গড়তেই পারল না - খুব দ্রুত আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হল।

একটি বিষয় নিয়ে জানার আগ্রহ অনেকের আর তা হলো, কি এমন কৌশল প্রয়োগ করেছিলো ভারতীয় সেনাবাহিনী? যৌথ বাহিনীর সামনে দুসপ্তাহও কেনো যুদ্ধে টিকে থাকতে পারেনি পাকিস্তান সেনাবাহিনী? বাংলাদেশ প্রশ্নে ভারতীয় রণনীতি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ভারতীয় সেনাবাহিনী এখানে নতুন এক যুদ্ধ কৌশল প্রয়োগ করেছিলো। সামরিক ভাষায় যেটাকে বলা হয় 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' আর তার টার্গেট ছিলো ঢাকা। যুদ্ধক্ষেত্রে এই বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি এক বিশাল পার্থক্য গড়ে দিয়েছিলো পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও যৌথ বাহিনীর মধ্যে। ভারতের কৌশলটা ছিল, পাকিস্তানি সেনা যেখানেই শক্ত ঘাঁটি গড়ে ভারতের অগ্রযাত্রাকে রুখতে চাইবে, সেটাকে পাশ কাটিয়ে একরকম সোজা ঢাকার দিকে এগিয়ে যাওয়া। এটাকে বলে 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি আর এক্ষেত্রে ভারতীয় সেনাবাহিনী খুলনা-চট্টগ্রামের মতো শহরকেও পাশ কাটিয়ে সরাসরি ঢাকাকে টার্গেট করে এগিয়েছে। হিলির মতো কয়েকটা শক্ত ঘাঁটিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ওপর আক্রমণ চালাতেই হয়েছে। তবে যতোটা সম্ভব নিরাপদে থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী ঢাকার দিকে অগ্রসর হয়েছে। ভারতীয় বাহিনী ঢাকার দিকে আরো সহজে আসতে পেরেছিলো মুক্তিবাহিনীর কারণে। কারণ ভারতীয় সেনা যখন পাকিস্তানী সেনার উপর আক্রমণ করছে তখন পাকিস্তানি ফৌজ তাদের পশ্চাৎবর্তী এলাকাটাকেও নিরাপদ ভাবতে পারছিলো না মুক্তিবাহিনীর জন্যই। সব সময় একটা আশঙ্কা পাকিস্তানী ফৌজের ছিলো যে, তাদের পেছনে কী হচ্ছে, রাস্তা কেটে দিচ্ছে, রসদপত্র আসছে না, সাপ্লাই অ্যামবুশ করে দিচ্ছে - এটা তাদের মনোবল একদম চুরমার করে দিয়েছিলএর ফলে দেখা গেল ঢাকার যখন পতন হয়েছে, তখন ভারতের পেছনে ফেলে আসা বহু জায়গায় পাকিস্তানি সেনারা তখনও ক্যান্টনমেন্টে আটকে বসে আছে এবং অসহায় আত্মসমর্পণে বাধ্য হচ্ছেএই 'বাইপাসিং স্ট্র্যাটেজি' দ্রুত পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে আত্মসমর্পণে বাধ্য করেছে।

১৯৭১ সালের ডিসেম্বরে যৌথ বাহিনির যুদ্ধটা যখন শুরু হল, সে সময়কার দুটো ঘটনা বাংলাদেশের বিজয়কে ত্বরান্বিত করেছিলো। প্রথমত, ১৯৭০ সালে পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন হয়েছিল। রাজ্যে নকশাল আন্দোলন ও অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার কারণে সে সময় প্রচুর সৈন্য তখন আগে থেকেই মোতায়েন ছিল। যুদ্ধের আগে সেটা ভীষণ কাজে দিয়েছিল। দ্বিতীয়ত, ঠিক সেই সময়টিতে ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একটা কাঠমান্ডু-দিল্লি ফ্লাইটকে ছিনতাই করে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল রাওয়ালপিন্ডিতে। পাল্টা ব্যবস্থা নিয়ে ভারত তখন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের ভেতর বিমান চলাচল বন্ধ করে দেয় - অর্থাৎ নিজেদের আকাশসীমা তাদের ব্যবহার করতে দেয় না। ফলে পাকিস্তান ভারী সামরিক সরঞ্জাম, রসদ বা সৈন্যসামন্ত সরাসরি আকাশপথে পূর্বদিকে আনতেই পারেনি, তাদের সে সব পাঠাতে হয়েছিল অনেক ঘুরে শ্রীলঙ্কা হয়ে সমুদ্রপথে! যা ছিলো অনেক সময়সাপেক্ষ ও কষ্টসাধ্য। এই দুটি বিষয়ও যৌথ বাহিনীর জন্য আশীর্বাদ হয়ে এসেছিলো। ফলে আক্রমণের মাত্র দুসপ্তাহের মাথায় পাকিস্তান সেনাবাহিনী আত্মসমর্পণে বাধ্য হয়।

যেকোন লড়াই সংগ্রামে জয়লাভের জন্য সামরিক কৌশল অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভারত-বাংলাদেশ যৌথ বাহিনীর কাছে দ্রুতই পাকিস্তান সেনাবাহিনীর পরাজয় বরণের পেছনে একটা বড় কারণ হচ্ছে এই সামরিক কৌশল। আমরা হয়তো অনেকেই জানিনা, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতের প্রায় ১৫০০ সেনা শহীদ হয়েছেন। বিজয়ের মাসে মহান মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করার পাশাপাশি আমরা স্মরণ করতে চাই সেই মহান ভারতীয় সৈনিকদের যারা আমাদের মুক্তিদানের জন্য নিজের জীবনকে তুচ্ছজ্ঞান করে বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো।

লেখক- -      হাসান ইবনে হামিদ, রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...
ক্যালেন্ডার...

Sun
Mon
Tue
Wed
Thu
Fri
Sat